loader image for Bangladeshinfo

শিরোনাম

  • বিপিএল: মেহেদীর ব্যাটিংয়ে রংপুরের জয়

  • অনূর্ধ্ব-১৯ নারী টি-২০ বিশ্বকাপের সেরা দলে বাংলাদেশের স্বর্ণা

  • বিদ্যুতের দাম আবারও বাড়লো; খুচরা ৫ ও পাইকারি ৮ শতাংশ

  • প্রথম দল হিসেবে ‘প্লে-অফ’ পর্বে মাশরাফির সিলেট

  • প্রধানমন্ত্রী ১ ফেব্রুয়ারি অমর একুশে বইমেলা উদ্বোধন করবেন

সৌদি আরবের বিপক্ষে জিতেও মেক্সিকোর স্বপ্নভঙ্গ


সৌদি আরবের বিপক্ষে জিতেও মেক্সিকোর স্বপ্নভঙ্গ

কাতার বিশ্বকাপে সি’ গ্রুপে শেষ রাউন্ডের ম্যাচে মেক্সিকো ২-১ গোলে সৌদি আরবকে হারিয়েছে। যাহােক, এই জয়ের পরও গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থাকায় শেষ ষোলোতে যেতে পারলো না মেক্সিকো। ৩-০ গোলে জিতলেই পরের রাউন্ডে যেতে পারতো দলটি।

এই জয়ে তিন ম্যাচ শেষে মেক্সিকোর পয়েন্ট চার। সমান-সংখ্যক ম্যাচে চার পয়েন্ট পোল্যান্ডেরও। তবে, পোল্যান্ডের সাথে গোল পার্থক্যে পিছিয়ে থাকায় ১৯৮৬ সালের পরে এই প্রথম গ্রুপ পর্ব থেকেই  বিশ্বকাপ মিশন শেষ করলো মেক্সিকো।

গ্রুপ পর্বে তিন ম্যাচে পোল্যান্ড গোল করেছে দুইটি, গোল হজম করেছে দুইটি। মেক্সিকো গোল দিয়েছে দুইটি, গোল হজম করেছে তিনটি। এক গোল বেশি হজম করায় নকআউটে যেতে পারলো না মেক্সিকো। 

গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে বিপক্ষে পাওয়া জয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের একেবারে নিচে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করলো সৌদি আরব। এই গ্রুপ থেকে আর্জেন্টিনা ও পোল্যান্ড শেষ ষোলোর টিকিট পেলো।

গ্রুপে দুই রাউন্ডের খেলা শেষে সৌদি আরবের ছিলো তিন পয়েন্ট। মেক্সিকোর ছিল এক পয়েন্ট। জয় পেলেই পরের রাউন্ডে খেলবে সৌদি। জিতলেও, পোল্যান্ড-আর্জেন্টিনার ম্যাচের ফলাফলের উপর নির্ভর করবে মেক্সিকোর শেষ ষোলো। ড্র করলে শুধুমাত্র সুযোগ থাকবে সৌদির – এমন সমীকরণ নিয়েই মাঠে নেমেছিল দলগুলো।

লুসাইল স্টেডিয়ামে বুধবার (৩০ নভেম্বর) ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ-পাল্টা-আক্রমণে মনোযোগী ছিল মেক্সিকো ও সৌদি আরব। প্রথম আট মিনিটেই দু’বার করে আক্রমণ করেছে দল দুইটি। তবে, গোলের দেখা পায়নি কোনো দলই।

২৫ মিনিটে গোলের ভালো সুযোগ পেয়েছিল মেক্সিকো। স্ট্রাইকার হেনরি মার্টিনের পাস থেকে বক্সের ভেতর থেকে শট নেন মিডফিল্ডার ওর্বেলিন পিনেডা। যাহােক, সেই শট দক্ষতার সাথে রুখে দেন সৌদির গোলরক্ষক আল-ওয়েসিস।

এরপর ৩৬ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে আক্রমণ রচনা করে গোলের সুযোগ হাতছাড়া করে মেক্সিকো। কর্নার থেকে বল পেয়ে বাঁ-প্রান্ত দিয়ে সৌদির বক্সে ক্রস করেন স্ট্রাইকার অ্যালেক্সিস ভেগা; সেই ক্রস গোলবারের উপর পাঠিয়ে দেন জেসুস গালার্ডো।

মেক্সিকোর একক আধিপত্যের পরও গোলশূন্যভাবে শেষ হয় ম্যাচের প্রথমার্ধ। বেশি সময় বল দখলে রাখার পাশাপাশি নয়বার আক্রমণ করেছে দলটি।

প্রথমার্ধে দুদার্ন্ত খেলার ধারাবাহিকতা দ্বিতীয়ার্ধের ধরে রাখে মেক্সিকো। এই অর্ধে খেলা শুরুর সাত মিনিটের মধ্যে দুইটি গোল করে তাঁরা।

৪৭ মিনিটে কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে হেডে বক্সের ভেতর থাকা মার্টিনকে পাস দেন ডিফেন্ডার সিজার মন্টেমস; বল পেয়েই বাঁ-পায়ের শটে গোল আদায় করে নেন মার্টিন (১-০)। পাঁচ মিনিট পরেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে মেক্সিকো। ফ্রিকিক থেকে বাঁ-পায়ের শটে গোল করেন মিডফিল্ডার লুইস শাভেজ। ২-০ গোলে এগিয়ে চালকের আসনে বসে মেক্সিকো।

তারপরও বল দখলে রেখে আক্রমণ অব্যাহত রেখেছিল মেক্সিকানরা। অন্যদিকে, ম্যাচে ফিরতে আক্রমণ করার চেষ্টা করে সৌদি আরবও। ৬২ ও ৬৭ মিনিটের সৌদির দু’টি আক্রমণেই বাঁধা হয়ে দাঁড়ান  মেক্সিকোর গোলরক্ষক ও ডিফেন্ডাররা।

ইনজুরি সময়ের পঞ্চম মিনিটে সৌদির পক্ষে গোল করে ব্যবধান কমান মিডফিল্ডার সালেম আল ডসারি। এই গোল হজমে শেষ ষোলো থেকে ছিটকে পড়ে মেক্সিকো। অবশ্য, এই গোল হজম না করলেও নকআউটে উঠতে পারতো না দলটি। কারণ, পোল্যান্ডের চেয়ে বেশি কার্ড দেখেছেন তাঁরা। 

সৌদির বিপক্ষে ৩-০ গোলে জিতলে পরের রাউন্ডে যেতে পারতো মেক্সিকো। শেষ পর্যন্ত, ২-১ গোলে জিতেও হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো মেক্সিকোকে।

Loading...