loader image for Bangladeshinfo

শিরোনাম

  • ৩৪ বলে ম্যাচ জিতে সুপার এইটে অস্ট্রেলিয়া

  • শ্রীলংকার স্বপ্নভঙ্গ; সুপার এইটে দক্ষিণ আফ্রিকা

  • টি-২০ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের প্রথম জয়

  • প্রীতি ম্যাচে গোলে পর্তুগালের বড় জয়

  • বিশ্বকাপ বাছাই: লেবাননের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের পরাজয়

রেকর্ড-গড়া ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত


রেকর্ড-গড়া ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত

মুশফিকুর রহিমের ব্যাটিং-রেকর্ডের পরে বৃষ্টির কারণে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ডের মধ্যকার দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়েছে। বাংলাদেশের ইনিংস শেষে ঝুম বৃষ্টিতে উইকেট ঢেকে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বর্ষণ অব্যাহত থাকায় স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৩২ মিনিটে ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। কাট-অফ টাইম ছিল ৯টা ৩৩ মিনিট। কিন্তু, বারিধারা অব্যাহত থাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে ম্যাচটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন ম্যাচ অফিসিয়ালরা। আগামী ২৩ মার্চ একই ভেনুতে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেটি হবে। প্রথম ওয়ানডেতে রেকর্ড ১৮৩ রানে জিতে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে টাইাগাররা।

মুশফিকুরের দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ডে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৫০ ওভারে ছয় উইকেটে ৩৪৯ রানের পাহাড় গড়ে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ছয় নম্বরে নেমে ৬০ বলে অপরাজিত ১০০ রানের ইনিংস খেলেছেন মুশফিক। ফলে, বাংলাদেশের পক্ষে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়লেন তিনি। এছাড়া, নাজমুল হোসেন শান্ত ৭৩ ও লিটন দাস ৭০ রান করেছেন।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোমবার (২০ মার্চ) টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামে তামিম ইকবালের দল। আঁটসাঁট বোলিংয়ে বাংলাদেশের দুই ওপেনার – অধিনায়ক তামিম ও লিটন দাসকে আটকে রেখেছিলেন আয়ারল্যান্ডের দুই পেসার মার্ক অ্যাডায়ার ও গ্রাহাম হুম। প্রথম চার ওভারে মাত্র পাঁচ রান করতে পেরেছেন তামিম ও লিটন। পঞ্চম ওভারে প্রথম বাউন্ডারির দেখা পায় বাংলাদেশ। পাওয়ার-প্লে’র শেষ বলে দলীয় ৪২ রানে রান আউট হয়ে থামেন তামিম। চারটি চারে ৩১ বলে ২৩ রান করেন তামিম।

এরপর নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন লিটন। বিংশতম ওভারে ১০০ রানে পৌঁছায় বাংলাদেশ। পরের ওভারের প্রথম বলে ছক্কায় ওয়ানডেতে নিজের অষ্টম হাফ-সেঞ্চুরি করেন লিটন।

৫৩ বলে হাফ-সেঞ্চুরি করা লিটন শেষ পর্যন্ত ৭০ রানে পেসার কার্টিস ক্যাম্পারের বলে বিদায় নেন লিটন। ৭১ বল খেলে তিনটি করে চার-ছয় মেরেছেন লিটন। এই ইনিংসেই ওয়ানডেতে দুই হাজার রান পূর্ণ করেন লিটন। তিনি দ্বিতীয় উইকেটে শান্তর সাথে ৯৬ বলে ১০১ রান যোগ করেন।

লিটনের ফেরার পরে উইকেটে এসে ভালো শুরু করেও হুমের প্রথম শিকার হয়ে ব্যক্তিগত ১৭ রানে আউট হন সাকিব আল হাসান। সাকিবের সাথে ৩৯ রানের জুটি গড়ার পথে ৫৯ বলে ওয়ানডেতে তৃতীয় হাফ-সেঞ্চুরি করেন শান্ত।

লিটনের মতো ইনিংস খেলার চেষ্টা করে ৭৩ রানে থেমে যেতে হয়েছে শান্তকে। তিনি হুম-এর দ্বিতীয় শিকার হওয়ার আগে ৭৭ বল তিনটি চার ও দুইটি ছয়ে নিজের ইনিংস সাজিয়েছেন।

৩৪তম ওভারে দলীয় ১৯০ রানে শান্তর আউটে জুটি বাঁধেন তাওহিদ হৃদয় ও মুশফিকুর রহিম। তাঁরা দ্রুত উইকেটে সেট হয়ে মারমুখী ব্যাট করতে থাকেন। ৪৩তম ওভারে ছক্কায় ৩৪ বলে ওয়ানডেতে ৪৪তম হাফ-সেঞ্চুরি করেন ছয় নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা মুশফিক।

মুশফিক পারলেও অর্ধশত রান মিস করেছেন দারুণ খেলতে থাকা হৃদয়। অ্যাডায়ারের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ৩৪ বলে চারটি চার ও একটি ছয়ে ৪৯ রানে আউট হন হৃদয়। পঞ্চম উইকেটে ৭৮ বলে ১২৮ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশের স্কোর ৩০০ পার করে নিয়ে যান মুশফিক-হৃদয়।

দলীয় ৩১৮ রানে হৃদয়ের ফেরার সময় মুশফিকের রান ছিল ৪৬ বলে ৭৮। সেঞ্চুরি পেতে ইনিংসের শেষ চার বলে নয় রান দরকার ছিল মুশফিকের। তৃতীয় থেকে পঞ্চম বলে একটি চারসহ আট রান নেন তিনি। শেষ বলে এক রান নিয়ে ওয়ানডেতে নিজের নবম সেঞ্চুরি করেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল।

মুশি ২৪৫ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এই প্রথম ছয় নম্বরে নেমে সেঞ্চুরি করলেন। তাঁর ইনিংসে ১৪টি চার ও দুইটি ছক্কা ছিল। এই ইনিংস খেলার পথে সাত হাজার রানও পূর্ণ করলেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে ছয় উইকেটে ৩৪৯ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় টাইগাররা। ওয়ানডেতে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ দলীয় রান।

আয়ারল্যান্ডের হুম তিন উইকেট শিকার করলেন।

Loading...