loader image for Bangladeshinfo

শিরোনাম

  • রোববার পবিত্র শবেবরাত

  • ছায়ানটে সমধারা’র দশম কবিতা উৎসব অনুষ্ঠিত

  • বঙ্গবন্ধু অ্যাপ’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • স্টপেজ টাইমের গোলে আর্সেনালকে হারালো পোর্তো

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সার সাথে ড্র করেছে নাপোলি

সিঙ্গাপুরকে এবার আট গোল দিলো বাংলাদেশ নারী দল


সিঙ্গাপুরকে এবার আট গোল দিলো বাংলাদেশ নারী দল

বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল তিন দিন আগেই প্রথম প্রীতি ম্যাচে সিঙ্গাপুরকে ৩-০ গোলে পরাজিত করেছিল। দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের ব্যবধান বেড়ে হয়েছে প্রায় তিন গুণ। গোল-উৎসব করেই বছরটা শেষ করলেন সাবিনা খাতুনরা; সিঙ্গাপুরকে সোমবার (৪ ডিসেম্বর) ৮-০ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশের নারী জাতীয় দল। গত বছর সেপ্টেম্বরে সাফে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে এ-বছর জুলাইয়ে ঘরের মাঠে নেপালের সঙ্গে দুটি প্রীতি ম্যাচ ড্র করে বাংলাদেশ। সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে এশিয়ান গেমসে জাপান ও ভিয়েতনামের কাছে পরাজয়, নেপালের সঙ্গে আবার ড্র। বছরের শেষে এসে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচই জিতলো বাংলাদেশ। দুই ম্যাচে ১১ গোল হজম করে দেশে ফিরছেন সিঙ্গাপুরের নারীরা।

বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল সিঙ্গাপুরকে ৮-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে বছর শেষ করলো। দুই ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জয় পায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশ গত শুক্রবার সিরিজের প্রথম প্রীতি ম্যাচে সিঙ্গাপুরকে ৩-০ গোলে হারায়। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) সিরিজের দ্বিতীয় প্রীতি ম্যাচে প্রতিপক্ষকে ৮-০ গোলে উড়িয়ে দেয় সাবিনা খাতুনের নেতৃত্বাধীন দলটি। দলের জয়ে দুইটি করে গোল করেছেন তহুরা খাতুন ও রিতুপর্না চাকমা। বাকি চার গোল করেন – সানজিদা, সাবিনা খাতুন, মাতসুসিমা সুমাইয়া ও শামসুন্নাহার জুনিয়র।

এদিন কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে খেলার শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছে সাইফুল বারী টিটুর দল। প্রথমার্ধে তিন গোলে এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। ষোড়শ মিনিটে তহুরা খাতুন গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। ঋতুপর্ণা চাকমা অষ্টদশ মিনিটে সাবিনার কর্নার থেকে বল পেয়ে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। ২৪তম মিনিটের তহুরা খাতুন নিজের দ্বিতীয় গোল করেন। 

৫৭ মিনিটে গোল করেন রিতুপর্না। ৭৫ মিনিটে দলের ষষ্ঠ গোল করেন সাবিনা খাতুন। ৮৭ মিনিটে সপ্তম গোল করেন বদলি খেলোয়াড় সুমাইয়া।

ইনজুরি সময়ে আরও একবার সিঙ্গাপুরের জালে বল পাঠায় বাংলাদেশ। এবার বাঁ দিক থেকে রিতুপর্নার ক্রস থেকে বদলি শামসুন্নাহার প্লেসিংয়ে গোল করলে বাংলাদেশ ৮-০ ব্যবধানে জিতে মাঠ ছাড়ে।

প্রথম ম্যাচে তবু কিছুটা ওপরে আসতে পেরেছিল সিঙ্গাপুর; দ্বিতীয় ম্যাচে সেটাও পারেনি। প্রায় পুরো ম্যাচ দলটিকে খেলতে হয়েছে নিজেদের অর্ধেই। একের পর এক আটকাতে হয়েছে বাংলাদেশের আক্রমণ। ত্রয়োদশ মিনিটে তাঁরা প্রথম আক্রমণে আসতে পেরেছে। অথচ সিঙ্গাপুর র‍্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের চেয়ে ১২ ধাপ এগিয়ে। এদিন বাংলাদেশ এতটাই একতরফা খেলেছে যে, ১০-১২টি গোল হলেও অবাক হওয়ার কিছুই থাকতো না!

Loading...