loader image for Bangladeshinfo

শিরোনাম

  • ইতালিয়ান কাপের শিরোপা জিতলো ইউভেন্টাস

  • ইউরোপের খেলার আশা টিকিয়ে রাখলো ম্যানইউ

  • মেসিবিহীন ইন্টার মায়ামির গোলশূন্য ড্র

  • অষ্টাদশ শিক্ষক নিবন্ধনে গড় পাসের হার ৩৫.৮০ শতাংশ

  • সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দ্বিতীয় ধাপের চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশিত

ক্লাসিকোতে বার্সাকে হারিয়ে শিরোপার আরও কাছে রিয়াল


ক্লাসিকোতে বার্সাকে হারিয়ে শিরোপার আরও কাছে রিয়াল

রিয়াল গত বছর অক্টোবরে লিগে প্রথম ক্লাসিকোয় ৯২ মিনিটে জুড বেলিংহামের গোলে জিতেছিল। সেটাও ছিল ঘুরে দাঁড়িয়ে নেওয়া জয়। ফিরতি ক্লাসিকোতেও রোববার (২১ এপ্রিল) বেলিংহাম রিয়ালকে জয়সূচক গোলটি এনে দেন যোগ করা সময়ে, এক মিনিটে। ডান প্রান্ত দিয়ে ভাসকেজের মাপা ক্রস খূঁজে নিয়েছিল বেলিংহামের পা। ৯২ মিনিটে ইংল্যান্ড তারকার এই গোলে ম্যাচ থেকে পয়েন্ট তুলে নেওয়ার সাধ চূর্ণ হয় বার্সার। লিগে এ নিয়ে ১৭ গোল হয়ে গেল বেলিংহামের। এবার লিগে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতাও বেলিংহাম। জিরোনার আরতেম দোভাকের সঙ্গে পিছিয়ে এক গোল ব্যবধানে। পাঁচ দিনের ব্যবধানে ম্যানচেস্টার সিটি ও বার্সাকে হারানোর স্বাদ পেল রিয়াল। গত বৃহষ্পতিবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কোয়ার্টার-ফাইনাল ফিরতি লিগে টাইব্রেকারে সিটিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে কার্লো আনচেলত্তির দল। ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় পরের ধাপে উত্তীর্ণ হওয়ার পর ক্লাসিকো খেলতে নেমে এটাই প্রথম জয় রিয়ালের। অন্যদিকে, ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে পড়ার পর ক্লাসিকো খেলতে নেমে এটাই প্রথম হার বার্সার। সেটা আবার ম্যাচে দুইবার এগিয়ে যাওয়ার পর। রিয়াল লা লিগায় ২৫ ম্যাচে অপরাজিত। আনচেলত্তির দল এই মৌসুমে বার্সার বিপক্ষে টানা তৃতীয় জয় পেলো।

সান্তিয়াগো বার্নাবিউতে গোল করে শুরুতে এগিয়ে যাওয়ার স্বস্তি মেলে বার্সেলোনা শিবিরে। রিয়াল মাদ্রিদও ম্যাচে ফিরতে সময় নেয়নি। দ্বিতীয়ার্ধে বার্সেলোনা আরেকবার এগিয়ে গেলে আবারও ম্যাচে ফিরে আসে লস ব্লাংকোরা। ম্যাচে ফিরে শেষ দিকে আরেকটি গোল করে ঘরের মাঠে ৩-২ গোলের দারুণ জয় তুলে নিল রিয়াল মাদ্রিদ। এতে লিগ শিরোপা জয়ের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল রিয়াল। শীর্ষে থাকা রিয়াল দুইয়ে থাকা বার্সার চেয়ে এগিয়ে গেল ১১ পয়েন্টে। ৩২ ম্যাচে রিয়ালের পয়েন্ট ৮১, বার্সেলোনার ৭০। শেষ ছয় ম্যাচে তিনটিতে জিতলেই চ্যাম্পিয়ন হবে রিয়াল।

প্রতিপক্ষের মাঠে শুরুতেই রিয়ালের ওপর চাপ ফেলে গোল আদায় করে নেয় বার্সেলোনা। ষষ্ঠ মিনিটে রাফিনিয়ার কর্নারে দূরের পোস্টে লাফিয়ে উঠে হেডে লক্ষ্যভেদ করেন আন্দ্রে ক্রিস্টেন্সেন। একটু পরেই ম্যাচে ফেরার সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। অরিলিয়ে চুয়েমিনির তুলে দেওয়া বল লুকা মডরিচ মাথা দিয়ে ফ্লিকে বাড়ানো বলে শট নিলেও তা জাল খুঁজে পায়নি।

রিয়াল ম্যাচে ফিরতে অবশ্য খুব বেশি সময় নেয়নি। ১৮ মিনিটে নিজেদের বক্সে পাউ কুবারসি লুকাস ভাস্কুয়েজকে ফেলে দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে দলকে ম্যাচে ফেরান ভিনিসিয়ুস। চলতি লিগে এটি তাঁর ত্রয়োদশ গোল।

সমতায় থাকা ম্যাচে দুই দলই এরপর সুযোগ তৈরির চেষ্টায় ছিল।

বার্সেলোনা তো প্রায় গোল পেয়েই গিয়েছিল; এই অর্ধে কিন্তু ভাগ্যসহায় হয়নি। কর্নার থেকে আসা বলে লামিন ইয়ামালের ব্যাক ফ্লিক কোনোমতে গোললাইনের ওপর থেকে ফেরান আন্দ্রি লুনিন। বার্সার খেলোয়াড়রা গোলের জন্য আবেদন করতে থাকেন। লা লিগায় গোললাইন টেকনেলোজি না থাকলেও ভিএআর পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সিদ্ধান্ত দেয়, বল গোললাইন অতিক্রম করেনি।

দ্বিতীয়ার্ধে সমান তালে চলা ম্যাচে ৬৯ মিনিটে আবার এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। ইয়ামালের বাকানো শট ফেরান তোরেস ডামি করলে লুনিন কোনোমতে তা ফেরালেও ক্লিয়ার করতে পারেননি। ফিরতি বল অনায়াসে জালে পাঠান ফাঁকায় থাকা ফেরমিন লোপেজ। 

পিছিয়ে পড়া রিয়াল চার মিনিটের মধ্যে আবারও সমতা ফেরায়। ভিনিসিয়ুসের দারুণ ক্রস দূরের পোস্টে পেয়ে নিখুঁত ফিনিশিং করেন লুকাস ভাস্কুয়েজ।

শেষ দিকে বার্সার রক্ষণে একের পর এক হানা দিতে থাকেন কার্লো আনচেলোত্তির শিষ্যরা। দারুণ সুযোগ পেয়েও রিয়ালের তিন ফুটবলার ক্যাটালান বক্সে গোলমাল পাকিয়ে সুযোগ নষ্ট করে। তবে যোগ করা প্রথম মিনিটে আর কোনো ভুল করেননি বেলিংহাম। তিনি ভাস্কুয়েজের নিচু করে নেওয়া পাস বক্সের অন্য প্রান্তে পেয়ে দারুণ ফিনিশিং করেন। আর এতেই  জয় নিশ্চিত হয়ে যায় রিয়ালের।

Loading...