loader image for Bangladeshinfo

ব্রেকিং নিউজ

  • সাহারা খাতুন হাসপাতালে ভর্তি

  • কোভিড-১৯ চিকিৎসায় উত্তরায় ৩০০ শয্যার হাসপাতাল উদ্বোধন

  • মাস্ক পরার নতুন পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন, ৭২ ঘণ্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে

  • দেশে করোনায় ২৪ ঘন্টায় ৩৫ জনের মৃত্যু, ২৬৩৫ জন শনাক্ত, সুস্থ ৫২১ জন

লা লিগায় চার ম্যাচ পরে মেসির চার গোল


লা লিগায় চার ম্যাচ পরে মেসির চার গোল

লা লিগায় আগের চার ম্যাচে গোল পাননি। তবে এমনটি নয় যে - ভালো খেলতে পারছিলেন না বার্সেলোনা-অধিনায়ক লিওনেল মেসি। নিজের স্বাভাবিক নৈপুণ্যের মাধ্যমেই ছয়টি গোল করিয়েছিলেন সতীর্থদের দিয়ে। তবে, নিজের গোল না পাওয়ার আক্ষেপ ষোলোআনা পুষিয়ে নিলেন এইবারকে সামনে পেয়ে। রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি'অর জয়ী এই তারকা হ্যাটট্রিক তো পেলেনই, শেষ পর্যন্ত করলেন চার গোল। ফলে লা লিগায় আবারো শীর্ষে উঠে এলো বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ক্লাবটি।

ন্যু ক্যাম্পে শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ম্যাচের প্রথমার্ধেই হ্যাটট্রিক করেছেন মেসি। দ্বিতীয়ার্ধে করেন আরও একটি গোল। ফলে ৫-০ গোলের বড় ব্যবধানে জিতেছে বার্সেলোনা। এই জয়ে ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট বার্সেলোনার। এক ম্যাচ কম খেলে রিয়ালের সংগ্রহ ৫৩ পয়েন্ট।

শীর্ষে থাকা রিয়াল মাদ্রিদকে টপকেছে বটে, তবে ফের শীর্ষে ওঠার সুযোগ এদিনই পাচ্ছে রিয়াল। রাতেই লেভান্তের মাঠে জয় পেলে ফের শীর্ষে উঠবে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা। 

চতুর্দশ মিনিটে শুরু হয় মেসির জাদু। ইভান রাকিতিচের বাড়ানো বলে এক ডিফেন্ডারকে নাগমেট করে আরও ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বাঁ প্রান্ত থেকে নেওয়া নিখুঁত এক শট বল জালে জড়ান বার্সা-অধিনায়ক (১-০)। তিন মিনিট পর মিনিটে ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন গ্রিজমান, কিন্তু দারুণ সেইভ করেন এইবার গোলরক্ষক মার্কো দিমিত্রভিচ। পরের মিনিটে ভিদালের শটও ফিরিয়ে দেন তিনি।

৩৭তম মিনিটে আবারো মেসি-জাদু। আর্তুরু ভিদালের পাস থেকে তিন খেলোয়াড়কে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে দারুণ শটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন এই আর্জেন্টাইন (২-০)।

তিন মিনিট পরে হ্যাটট্রিক করেন মেসি। অবশ্য এই গোলে বড় দায় রয়েছে এইবার ডিফেন্ডারদের। ডান প্রান্তে আলভারো তেজেরু ঠিকভাবে বল বিপদমুক্ত করতে না পারলে রাকিতিচের পায়ে লেগে অনেকটা ফাঁকায় বল পেয়ে যান মেসি। এগিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে শট নিলে গোল পেতেও পারতেন তিনি। তবে আরও নিশ্চিত হতে ফাঁকায় দাঁড়ানো আতোঁয়ান গ্রিজম্যানকে কাটব্যাক করেন; কিন্তু অবিশ্বাস্যভাবে মিস করেন গ্রিজমান। বলের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেননি তিনি, পেছন থেকে এক ডিফেন্ডার এসে বল ঠিকভাবে বল পরিষ্কার করতে না পারায় ফের ফাঁকায় বল যান মেসি। এবার নিজেই শট নিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন এই ফুটবল জাদুকর (৩-০)।

বিরতির আগে প্রায় নিশ্চিত একটি গোলবঞ্চিত হয় বার্সেলোনা। এইবার গোলরক্ষক অবিশ্বাস্য দু’টি সেইভ করেন। প্রথম দফায় গোলবঞ্চিত করেন গ্রিজমানকে। দ্বিতীয় দফায় সের্জিও বুসকেতসকে। গোলরক্ষককে একা পেয়ে বুদ্ধিদীপ্ত শট নিতে না পারায় গ্রিজমানের শট ফেরান দিমিত্রভিচ। আর গোলমুখে একেবারে ফাঁকায় থাকায় বুসকেতসের শটও ফেরান তিনি।

৫২তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর আরও একটি দারুণ সুযোগ নষ্ট করে বার্সেলোনা। মেসির বাড়ানো বল ধরে বাঁ প্রান্তে ক্রস করেছিলেন গ্রিজমান। ঝাঁপিয়ে পড়ে ভালো শট নিয়েছিলেন রাকিতিচ, তবে অল্পের জন্য লক্ষ্যে রাখতে পারেননি। 

১০ মিনিট পরে দারুণ এক সেইভ করেন বার্সা-গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টার স্টেগান। বিপজ্জনক জায়গা থেকে ফ্রিকিক পেয়েছিল এইবার। ভালো শট নিয়েছিলেন তাকাসি ইনুই; তবে ঝাঁপিয়ে পড়ে সফরকারীদের হতাশ করেন স্টেগান।

৬২তম মিনিটে নেলসন সেমেদোর ভুলে বিপজ্জনক জায়গায় বল পান তাকাসি। ডি-বক্সে ঢুকে ভালো শট নিয়েছিলেন এ জাপানি তারকা। বদলী খেলোয়াড় ফ্রাঙ্কি ডি ইয়ংয়ে গায়ে লেগে দিক বদলে অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে সে-যাত্রা বেঁচে যায় বার্সা। 

৬৮তম মিনিটে অবিশ্বাস্য এক মিস করেন এইবারের পাবলো ডি ব্লেসিস। একেবারে ফাঁকায় বল পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি তিনি। বল পেয়ে বেশ কিছুক্ষণ দেখেশুনে শট নিয়েছিলেন তিনি। তবে অসাধারণ দক্ষতায় ঝাঁপিয়ে পড়ে তা লুফে নেন স্টেগেন।

৭৯তম মিনিটে মেসির ফ্রিকিক ফিস্ট করে ফিরিয়ে দেন এইবার গোলরক্ষক দিমিত্রভিভ। আট মিনিট পরে নিজেদের চতুর্থ গোল করেন মেসি। এই গোলে দারুণ অবদান রয়েছে বিশেষ বিবেচনায় সাইনিং করা মার্টিন ব্র্যাথওয়েটের। তাঁর নেওয়া শট গোলরক্ষকের হাতে লেগে ফাঁকায় বল পেয়ে লক্ষ্যভেদ করেন মেসি (৪-০)। 

খেলার একেবারে শেষ দিকে ব্যবধান আরও বাড়ায় বার্সেলোনা। এবারও ব্র্যাথওয়েটের শট গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলে বল পেয়ে জালে ছুঁইয়ে দেন আর্থুর মেলো (৫-০)।

Loading...