loader image for Bangladeshinfo

ব্রেকিং নিউজ

  • কোভিড-১৯ চিকিৎসায় উত্তরায় ৩০০ শয্যার হাসপাতাল উদ্বোধন

  • মাস্ক পরার নতুন পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  • মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন, ৭২ ঘণ্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে

  • দেশে করোনায় ২৪ ঘন্টায় ৩৫ জনের মৃত্যু, ২৬৩৫ জন শনাক্ত, সুস্থ ৫২১ জন

  • প্রবাসী-আয়ে ১৬.৫৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের নতুন রেকর্ড

পঞ্চাশতম ম্যাচ জিতে শেষ হলো মাশরাফির অধিনায়কত্ব


পঞ্চাশতম ম্যাচ জিতে শেষ হলো মাশরাফির অধিনায়কত্ব

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ: ৪৩ ওভারে ৩২২/৩ (তামিম ১২৮*, লিটন ১৭৬; মুম্বা ৩/৬৯)
জিম্বাবুয়ে: (লক্ষ্য ৩৪২) ৩৭.৩ ওভারে ২১৮ (মাধেভেরে ৪২, চাকাভা ৩৪, উইলিয়ামস ৩০; মাশরাফি ১/৪৭, সাইফউদ্দিন ৪/৪১, মোস্তাফিজ ১/৩২, আফিফ ১/১২, তাইজুল ২/৩৮)
ফলাফল: বাংলাদেশ রানে ১২৩ জয়ী
সিরিজ: তিন ম্যাচের সিরিজে বাংলাদেশের জয় ৩-০ ব্যবধানে
ম্যাচ-সেরা: লিটন দাস
সিরিজ-সেরা: লিটন দাস ও তামিম ইকবাল

জয় দিয়ে শেষ হলো বাংলাদেশের হয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজার অধিনায়কত্বের অধ্যায়। শুক্রবার (৬ মার্চ) সিলেট আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে বৃষ্টি আইনে ১২৩ রানে বড় ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশ। ফলে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে জিম্বাবুয়েকে আবারও হোয়াইটওয়াশ করলো টাইগার। এই জয়ের মাধ্যমে অধিনায়ক হিসেবে ওয়ানডেতে ৫০ ম্যাচ জেতার রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল দলপতি মাশরাফি।

লিটন দাসের রেকর্ড ইনিংস ও তামিম ইকবালের টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরিতে ভর করে বাংলাদেশ উঠলো রানের পাহাড়ে। গড়া হলো বেশ কয়েকটি রেকর্ড। এরপর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও তাইজুল ইসলামরা জিম্বাবুয়েকে গুঁড়িয়ে দিলেন অল্প রানে। টানা তিন জয়ে তাঁদেরকে হোয়াইটওয়াশ করলো টাইগাররা। নেতৃত্বের বিদায় বেলায় মাশরাফি বিন মর্তুজা পেলেন দারুণ তৃপ্তি।

শুক্রবার (৬ মার্চ) সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ১২৩ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে বৃষ্টির কারণে ৪৩ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে আগে ব্যাট করে ৩ উইকেটে ৩২২ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় টাইগাররা। এরপর বৃষ্টি আইনে জিম্বাবুয়ের সামনে দাঁড়ায় ৩৪২ রানের বিশাল লক্ষ্য। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ৩৭.৩ ওভারে তারা পৌঁছাতে পারে ২১৮ রান পর্যন্ত।

শেষবারের মতো বাংলাদেশের অধিনায়কত্ব করতে নেমে দারুণ এক মাইলফলক গড়লেন মাশরাফি। বাংলাদেশের প্রথম দলনেতা হিসেবে ওয়ানডেতে জয়ের হাফসেঞ্চুরি করলেন তিনি। ৮৮ ওয়ানডেতে দলকে নেতৃত্ব দেওয়া মাশরাফির জয় ৫০টি।

জিম্বাবুয়েকে টানা চতুর্থ ও সবমিলিয়ে পঞ্চমবারের মতো হোয়াইটওয়াশ করল বাংলাদেশ। এই সাফল্যের সবগুলো নজির লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা গড়েছে ঘরের মাঠে।

এদিন বড় কোনো জুটি না গড়তে পারলেও ইনিংস জুড়ে জিম্বাবুয়ের রান তোলার গতি ছিল বেশ। ধারাবাহিকভাবে ওভারপ্রতি ৬ বা তার কাছাকাছি রান করেছেন তাঁরা। কিন্তু বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া বিশাল লক্ষ্যটা তাঁদের নাগালের বাইরে থেকে যায়।

ইনিংসের চতুর্থ বলেই ধাক্কা খেয়েছে সফরকারীরা। মাশরাফির আউট সুইংয়ে পরাস্ত হয়ে উইকেটের পেছনে লিটনের হাতে ক্যাচ দেন ওপেনার টিনাশে কামুনহুকামউই। ব্যাট হাতে বাজে একটি সিরিজ কাটানো ব্রেন্ডন টেইলরকে এদিনও টিকতে দেননি মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ২৮ রানের মধ্যে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে জিম্বাবুয়ে।

আরেক ওপেনার রেগিস চাকাভা ও অধিনায়ক শন উইলিয়ামস মিলে সচল রাখেন রানের চাকা। চতুর্দশ ওভারে আক্রমণে আসা অভিষিক্ত আফিফ হোসেন দ্বিতীয় বলেই ভাঙেন জুটি। অফ স্টাম্প হারানো উইলিয়ামসের ব্যাট থেকে আসে ৩৬ বলে ৩০ রান। ৪৬ রানের এই জুটি হয়ে থাকে জিম্বাবুয়ের ইনিংসের সর্বোচ্চ।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক সিরিজে প্রতিভার স্বাক্ষর রাখা ওয়েসলি মাধেভেরে আরও একবার আলো ছড়ান। ১৯ বছর বয়সী এই তরুণ চতুর্থ উইকেটে চাকাভার সঙ্গে ৩৯ ও পঞ্চম উইকেটে সিকান্দার রাজার সঙ্গে ৩৭ রানের জুটি গড়েন।

চাকাভাকে বোল্ড করেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল। ৪৫ বলে তার সংগ্রহ ৩৪ রান। আর ৪২ বলে ৪২ রান করে মাধেভেরে হন সাইফউদ্দিনের দ্বিতীয় শিকার। এই ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাজার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউটের ফাঁদে পড়েন রিচমন্ড মুটুমবামি। এরপর মোস্তাফিজুর রহমানের কাটারে কাটা পড়েন টিনোটেন্ডা মুটমবোডজি। ২৩ রানের মধ্যে ৩ উইকেট খুইয়ে লড়াই থেকে একেবারে ছিটকে যায় জিম্বাবুয়ে।

আগের ম্যাচে ঝড় তুলে বাংলাদেশকে ভড়কে দিয়েছিলেন পেসার ডোনাল্ড টিরিপানো। এদিনও মোস্তাফিজের এক ওভারে দুই ছক্কা মেরে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছিলেন দারুণ কিছুর। কিন্তু তাকে এগোতে দেননি তাইজুল। মোস্তাফিজের বলে লিটনের হাতে জীবন পেয়েও তিনি সাজঘরে ফেরেন ১৮ বলে ১৫ রানে।

পরাজয়ের ব্যবধান কমাতে লড়ে যাচ্ছিলেন রাজা। ৫০ বলে ৬১ রান করা এই ডানহাতিকে বিদায় করার পরের বলে চার্লটন শুমাকে বোল্ড করে জিম্বাবুয়েকে অলআউট করে দেন সাইফউদ্দিন। তিনি আগামী ম্যাচে নামবেন হ্যাটট্রিকের সুবাস নিয়ে। সবমিলিয়ে সাইফউদ্দিনের শিকার ৪১ রানে ৪ উইকেট। তাইজুলের ঝুলিতে গেছে ২ উইকেট।

এর আগে বাংলাদেশের ইনিংসের মাঝে বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ ছিল ২ ঘণ্টা ৩৮ মিনিট। দুদলের ক্রিকেটাররা মাঠ ছাড়ার আগে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ছিল ৩৩.২ ওভারে বিনা উইকেটে ১৮২ রান। মাঠ প্রস্তুত হওয়ার পর ফের খেলা মাঠে গড়ালে বাংলাদেশ ৯.৪ ওভারে ৩ উইকেট খুইয়ে যোগ করে ১৪০ রান। এর মূল কৃতিত্ব লিটনের। তিনি ১৪৩ বলে ১৭৬ রান করেন। আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ১৬ চারের সঙ্গে ৮ ছক্কা মারেন তিনি। সবগুলো ছয়ই আসে বৃষ্টির বাধা পেরিয়ে ফের খেলা শুরু হলে। তিনি অবশ্য জীবন পান তিনবার। ব্যক্তিগত ১০২, ১২২ ও ১৪২ রানে।

একই ভেন্যুতে আগের ম্যাচে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড গড়েছিলেন তামিম। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই আগের ১৫৪ রানের কীর্তি ভেঙে ১৫৮ রান করে নতুন উচ্চতায় উঠে গিয়েছিলেন বাঁহাতি তারকা। কিন্তু তার রেকর্ড টিকল না তিনদিনও! ক্যারিয়ারের তৃতীয় ও চলতি সিরিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরিকে লিটন দান করলেন আলাদা মহিমা। এই ইনিংস খেলার পথে ওয়ানডেতে এক হাজার রানও পূরণ করেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

তামিম ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ত্রয়োদশ সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব দেখান। এই সংস্করণে টানা দুই ম্যাচ সেঞ্চুরির কীর্তি এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো করলেন তিনি। সিরিজের আগের ম্যাচে তার ব্যাট থেকে এসেছিল অসাধারণ এক সেঞ্চুরি। এদিনও ব্যাটিংয়ে আলো ছড়িয়ে তিনি ১০৯ বলে ১২৮ রানে অপরাজিত থাকেন। এর আগে ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠের সিরিজে ঢাকায় টানা দুই ম্যাচে তিন অঙ্ক ছুঁয়েছিলেন তামিম।

সিলেটে ইনিংসের শুরু থেকেই তামিম ছিলেন সাবলীল। আগের ম্যাচে স্বস্তির সেঞ্চুরি পাওয়ায় তাঁর মাঝে যে হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে এসেছে, তা এদিন ব্যাট হাতে বুঝিয়ে দেন দেশসেরা ওপেনার। লিটন শুরুতে ছিলেন সাবধানী। কিন্তু সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তাঁর ব্যাট হয়ে ওঠে তরবারি। লিটন সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন ১১৪ বলে, এরপর তামিম ৯৭ বলে একই লক্ষ্যে পৌঁছান।

লিটন-তামিম মিলে ওপেনিং জুটিতে ৪০.৫ ওভারে যোগ করেন ২৯২ রান। বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে ৫০ ওভারের সংস্করণে যেকোনো উইকেট এটি সবচেয়ে বেশি রানের জুটির রেকর্ড। আগের রেকর্ড ছিল সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দখলে। তারা ২০১৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পঞ্চম উইকেটে ২২৪ রান যোগ করেছিলেন তিনি।

শুধু বাংলাদেশেরই নয়, ক্রিকেট ইতিহাসের পাতায় প্রবেশ করেছে তামিম-লিটনের স্মরণীয় জুটি। তাঁদের সম্মিলিত ২৯২ রান ওপেনিংয়ে ওয়ানডে ইতিহাসের তৃতীয় সর্বোচ্চ। তাঁদের আগে আছে শুধু জন ক্যাম্পবেল-শেই হোপ (৩৬৫ রান) ও ইমাম উল হক-ফখর জামান (৩০৪) জুটি। আর যেকোনো উইকেট বিবেচনায় নিলে তামিম-লিটনের জুটির রান ওয়ানডে ইতিহাসের ষষ্ঠ সর্বোচ্চ।

১৭৬ রানের ইনিংস খেলার পথে লিটন মেরেছেন ৮টি ছক্কা। এদিন তিনি ভেঙেছেন তামিমের রেকর্ড। লিটনের ওপেনিং সঙ্গী ২০১০ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হাঁকিয়েছিলেন ৭টি ছক্কা। সবমিলিয়ে এদিন বাংলাদেশ মেরেছে ১৪ ছক্কা। এটিও রেকর্ড।

ম্যালাহাইডে গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের ১১ বার ছক্কা মেরেছিল টাইগাররা।

Loading...