loader image for Bangladeshinfo

ব্রেকিং নিউজ

  • অসুস্থতা কাটিয়ে ইন্টারে ফিরেছেন এরিকসেন

  • জাপানকে পরাজিত করে ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ স্পেন

  • টাইব্রেকারে মেক্সিকোকে হারিয়ে অলিম্পিক ফুটবলের ফাইনালে ব্রাজিল

  • ঢাবি গার্হস্থ্য অর্থনীতির স্নাতক শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন ১৪ অগাস্ট পর্যন্ত বৃদ্ধি

  • উহানের সকল বাসিন্দার করোনা পরীক্ষা হবে

ম্যাচ জিতে পুরনো রেকর্ড স্পর্শ করলো ইতালি, হেরেও নকআউটে ওয়েল্স


ম্যাচ জিতে পুরনো রেকর্ড স্পর্শ করলো ইতালি, হেরেও নকআউটে ওয়েল্স

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের নকআউট পর্ব আগেই নিশ্চিত করা ইতালি রোবরার (২০ জুন) একাদশে আটটি পরিবর্তন নিয়ে খেলতে নেমে টানা তিন ম্যাচ জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। পাশাপাশি ৮২ বছরের পুরনো একটি রেকর্ডেও ভাগ বসালেন রবার্তো মান্চিনির শিষ্যরা। অন্যদিকে, চারবারের বিশ্বজয়ী দেশটির কাছে হারলেও পরের পর্বের টিকিট পেলো ওয়েল্স।

রোম অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে ১-০ গোলে জিতেছে স্বাগতিক দল। প্রথমার্ধের শেষদিকে জয়সূচক গোলটি করেন মিডফিল্ডার মাত্তেও পেসসিনা। তুরস্ককে ৩-০ গোলে হারিয়ে আসর শুরুর পরে একই ব্যবধানে ইতালি হারিয়েছিল সুইজারল্যান্ডকে।

১৯৩৫ সালের নভেম্বর থেকে ১৯৩৯ সালের জুলাইয়ের মধ্যে টানা ৩০ ম্যাচে অপরাজিত ছিল ইতালি। গ্যারেথ বেল-অ্যারন রাম্সেরদের হারিয়ে সেই স্মরণীয় কীর্তি স্পর্শ করেছে বর্তমান দলটি। এই নিয়ে টানা ১১ ম্যাচে কোনো গোল হজম করলো না আজ্জুরিরা। এবারের ইউরোতে তিন ম্যাচে সাত গোল করে এখন পর্যন্ত নিজেদের জাল অক্ষত রেখেছেন তাঁরা।

এদিন রক্ষণাত্মক কৌশল বেছে নেওয়া প্রতিপক্ষের গোলমুখে পুরো ম্যাচে মুহুর্মুহু আক্রমণ চালায় ইতালি। তাঁদের নেওয়া ২৩ শটের ছয়টি ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে, ওয়েল্সের তিনটি শটের মধ্যে লক্ষ্যে ছিল মাত্র একটি। দলটি পুরো ১১ জন নিয়ে ম্যাচ শেষ করতে পারেনি। বিরতির পরে বিতর্কিত লালকার্ড দেখে রেকর্ডের পাতায় ঠাঁই নেন ডিফেন্ডার ইথান আমপাডু। ইউরোতে এত কম বয়সে (২০ বছর ২৭৯) লালকার্ড পাননি আর কেউ।

দ্বাদশ মিনিটে আলেসান্দ্রো বাস্তোনি রক্ষণভাগ থেকে উঠে এসে দারুণ বল দেন দূরের পোস্টে। ফরোয়ার্ড আন্দ্রেয়া বেলোত্তি অনেক চেষ্টা করেও তাতে পা ছোঁয়াতে পারেননি।

পঞ্চদশ মিনিটে ওয়েল্সের গোলরক্ষক ড্যানি ওয়ার্ডকে পরীক্ষায় ফেলেন এমারসন। দুই মিনিট পরে রাফায়েল তোলোইয়ের পাসে পেসসিনার শটও ঠেকিয়ে দেন তিনি। ২৫তম মিনিটে ফেডেরিকো কিয়েসা কাছ থেকে বল পেয়ে বেলোত্তির নেওয়া শট লক্ষ্যে না থাকলে হাঁপ ছেড়ে বাঁচেন ওয়ার্ড।

২৭তম মিনিটে গোল প্রায় পেয়েই গিয়েছিল ওয়েল্স। ড্যানিয়েল জেমসের ক্রসে ক্রিস গান্টারের হেড ক্রসবারের সামান্য উপর দিয়ে চলে যায়। তিন মিনিট পর ডি-বক্সের ভেতরে তড়িঘড়ি করে শট নিয়ে সুযোগ হারান কিয়েসা।

৩৯তম মিনিটে গোলের দেখা পায় ইতালি। সেট-পিস থেকে তারকা মিডফিল্ডার ভেরাত্তি বল ফেলেন কাছের পোস্টে; ভলিতে জাল স্পর্শ করেন পেসসিনা। জাতীয় দলের জার্সিতে সাত ম্যাচে এটি তাঁর তৃতীয় গোল।

৫৩তম মিনিটে ফেদেরিকো বার্নারদেস্কির ফ্রি-কিক পোস্টে লেগে ফিরে আসে। দুই মিনিট পরে তাঁকে ফাউল করায় সরাসরি লালকার্ড দেখানো হয় আমপাডুকে। তাঁর বুট মাটি থেকে সামান্য উঁচুতে ছিল এবং তিনি চাপ দেন বার্নারদেস্কির গোড়ালিতে। রেফারির সিদ্ধান্তটা একটু বিস্ময়ই জাগিয়েছে!

৭৬তম মিনিটে সমতা আনার সুযোগ নষ্ট করেন বেল। সতীর্থের হেডের বল একদম ফাঁকায় পেয়েও তা উড়িয়ে মেরেছেন তিনি। তাঁর ভলি একটুও বিচলিত করতে পারেনি ইতালির গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডোনারুমাকে।

৮৮তম মিনিটে ডি-বক্সের মধ্য থেকে বেলোত্তির নেওয়া শট রুখে দেন ওয়ার্ড। ছয় গজের বক্সে ফিরতি শটেও তাঁকে পরাস্ত করা যায়নি। যোগ হওয়া সময়ে বদলি ব্রায়ান ক্রিস্টান্তের শট ফিরিয়ে আবারও ওয়েল্সের ত্রাতা বনে যান ওয়ার্ড। এদিন পাঁচটি সেইভ করেছেন তিনি।

গ্রুপের আরেক ম্যাচে আজারবাইজানের বাকুতে তুরস্ককে ৩-১ গোলে হারিয়ে নকআউটে উত্তরণের আশা বাঁচিয়ে রেখেছে সুইজারল্যান্ড। ওয়েল্সের মতো তাঁদেরও অর্জন চার পয়েন্ট। তবে, গোল পার্থক্যে ওয়েল্সের (+১) চেয়ে পিছিয়ে থেকে সুইসরা (-১) হয়েছে তৃতীয়। ছয় গ্রুপের তৃতীয় হওয়া সেরা চারটি দেশ জায়গা পাবে শেষ ষোলোতে।

পূর্ণ নয় পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থেকে গ্রুপপর্ব শেষ করেছে ইতালি। তুরস্ক কোনো পয়েন্ট পায়নি। মাত্র একবার লক্ষ্যভেদ করার বিপরীতে দলটি হজম করেছে আট গোল।

(পরিসংখ্যানগুলো সংকলিত)

Loading...