loader image for Bangladeshinfo

শিরোনাম

  • কাতার বিশ্বকাপের শেষ ষোলো পর্ব শনিবার শুরু

  • পর্তুগালকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় দক্ষিণ কোরিয়া; উরুগুয়েের বিদায়

  • ব্রাজিলকে হারিয়েও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিলো ক্যামেরুন

  • বেলজিয়ামের বিদায়; ৩৬ বছর পরে দ্বিতীয় রাউন্ডে মরক্কো

  • বিশ্বকাপ থেকে জার্মানির বিদায়; শেষ ষোলোতে জাপান-স্পেন

ক্যানাডার আধিপত্যের ম্যাচে বেলজিয়ামের কষ্টার্জিত জয়


ক্যানাডার আধিপত্যের ম্যাচে বেলজিয়ামের কষ্টার্জিত জয়

৩৩ বছর পরে ফুটবল-মঞ্চে দেখা হলো বেলজিয়াম ও ক্যানাডার। এদিন অষ্টম মিনিটে কানাডা স্ট্রাইকার আলফোন্সো ডেভিসের পেনাল্টি শট বেলজিয়ামের গোলরক্ষক থিবো কোর্টােয়া রুখে না দিলে ম্যাচের ফলাফল অন্যরকম হতে পারতো। শুধুমাত্র স্পট কিকই নয়, ম্যাচে ক্যানাডার আরও কয়েকটি গোলের ভালো সুযোগ ভেস্তে দিয়েছেন কোর্টোয়া। ৪৪ মিনিটে বেলজিয়ামের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন স্ট্রাইকার মিশি বাতশুয়ে। বেলজিয়াম জিতে মাঠ ছাড়লেও, দুর্দান্ত ফুটবল খেলেও মাথা নিচু করে মাঠ ছাড়ে ক্যানাডা। পুরো ম্যাচে ২২টি শট নিয়েছিল ক্যানাডা। অন্যদিকে, মাত্র নয়টি শট ছিল বেলজিয়ামের। বেশিরভাগ সময়ই মধ্যমাঠ ছিল কানাডার দখলে। তারপরও পরাজয় বরণ করতে হলো দলটিকে।

কাতার বিশ্বকাপে বুধবার (২৩ নভেম্বর) বেলজিয়াম আহমাদ বিন আলি স্টেডিয়ামে ক্যানাডার বিরুদ্ধে ১-০ গোলে জিতেছে। একমাত্র গোল করে এদিন তাঁদের জয়ের নায়ক মিশি বাতশুয়ে।

৩৬ বছর পরে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে আসা ক্যানাডা ম্যাচের শুরু থেকেই দুর্দান্ত ফুটবল উপহার দিয়েছে। কাগজে-কলমের ব্যবধান ঘুচিয়ে দলটি পুরো সময় চাপ ধরে রেখেছিল বেলজিয়ামের ওপর। কিন্তু, ফিনিশিংয়ের ব্যর্থতায় শেষ পর্যন্ত খালি হাতে মাঠ ছাড়তে হলো দলটিকে। আক্রমণের বিচারে অন্যদম সেরা দল বেলজিয়াম এক মুহূর্তের নৈপুণ্যে গোল দিয়ে কাঙ্ক্ষিত জয় তুলে নিলো।

চলতি আসরের শিরোপার দাবিদারদের অন্যতম, ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের দুই নম্বরে থাকা বেলজিয়ামের ওপর ক্রমাগত চাপ বাড়ায় বিশ্বকাপে মাত্র দ্বিতীয়বার খেলতে আসা ক্যানাডা। দশম মিনিটে এগিয়েও যেতে পারতো দলটি। ডি-বক্সে হাত দিয়ে বল ছুঁয়ে হলুদকার্ড দেখেন বেলজিয়ান মিডফিল্ডার ইয়ানিক কারাস্কো; ফলে, পেনাল্টিও পেয়ে যায় ক্যানাডা। যাহোক, স্পট কিক মিস হওয়ায় বিশ্বকাপে ক্যানাডার প্রথম গোল (১৯৮৬ আসরের তিন ম্যাচসহ) এখনো পাওয়া হয়ে উঠেনি।

যাহোক, শুরুর বিবর্ণ ভাব কাটিয়ে দ্বাবিংশ মিনিটে ভালো একটি আক্রমণ রচনা করে বেলজিয়াম। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে উঠে এদেন আজার প্রতিপক্ষের কঠিন চ্যালেঞ্জ সামলে ডি-বক্সে খুঁজে নেন ইউরি তিলেমান্সকে। তাঁর পাস ধরে শট নেন বাতশুয়ে। দারুণ ট্যাকলে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান ডিফেন্ডার কামাল মিলার।

ওই আক্রমণের পরে বেলজিয়ানদের ছন্দ খুঁজে পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হলেও, সেটি আর হয়নি। বরং, প্রতিপক্ষের আগ্রাসী ফুটবলে রক্ষণভাগ সামলাতেই ব্যস্ত সময় কেটেছে তাঁদের।

প্রথমার্ধে ক্যানাডার দাপট কতটা ছিল – তা স্পষ্ট দেখা যায় পরিসংখ্যানে। ৪৪ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে গোলের উদ্দেশ্যে ১৪টি শট নিয়েছে দলটি। বিপরীতে, বেলজিয়ামের মাত্র চারটি। বল অবশ্য লক্ষ্যে ছিল দুই দলেরই সমান দু’টি করে। তেমনই এক শটে ৪৪তম মিনিটে এগিয়ে যায় বেলজিয়াম। মাঝমাঠের অনেক আগে থেকে উঁচু করে থ্রু বল বাড়ান টবি আল্ডারভাইরেল্ড, সেটি নিয়ে প্রতিপক্ষের দু’জনের মধ্যে দিয়ে বক্সে ঢুকে নিখুঁত শটে গোল করেন বাতশুয়ে।

আগামী ২৭ নভেম্বর দোহার আল-থুমামা স্টেডিয়ামে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বেলজিয়াম খেলবে মরক্কোর বিপক্ষে। একই দিনে, দোহার খালিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে ক্যানাডার প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

Loading...